গ্যাস্ট্রিক কেন হয়? গ্যাস্ট্রিকের প্রতিরোধ করার সহজ উপায়।

কিছু খেতে পারিনা শুধু বুক জ্বালাপোড়া করে। আমাদের অনেকেরই খাবার পরে বুকে জ্বালাপোড়া করে। এই রোগটা কে আমরা অনেক ধরনের নাম দেই গ্যাস্ট্রিক আলসার এসিডিটি হার্ডবোর্ড রিফ্লাক্স ইত্যাদি।

আমাদের চ্যানেলটি সাবসক্রাইব করুন

কেন এই সমস্যাটা হয় ও বাসায় বসেই  কিবাবে এই সমস্যা কমানোর যায় তা নিয়ে নিচে আলোচনা করা হলঃ-

বুক জ্বালাপোড়ার পাশাপাশি মুখে টক টক লাগতে পারে আবার পেট ফাঁপা লাগতে পারে বমি ভাব হতে পারে বারবার ঢেকুর আসতে পারে আবার কারো কারো বারবার কাশি বা হেঁচকি হয়। কেন এই সমস্যাটা হয়,

সেটা দিয়ে শুরু করি আমরা যখন কিছু খাই সে খাবার পাকস্থলীতে যায় পাকস্থলী কিছু অ্যাসিড এবং আরো কিছু জিনিস তৈরি করে খাবার হজম করার জন্য। 

অ্যাসিড আর খাবার দুটোই পাকস্থলী থেকে নিচের দিকে নামতে থাকে তবে যদি অ্যাসিড নিচের দিকে নেমে গলার দিকে উপরে উঠে আসে তখন আমরা বুকে জ্বালা-পোড়া অনুভব করি তাহলে পাকস্থলীর অ্যাসিড কেন উপরের দিকে চলে আসে নীচে না নেমে। 

যে খাবার গুলো এই সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে অথবা এই সমস্যাটি বাড়িয়ে দিতে পারে তা হল নির্দিষ্ট কিছু খাবার যেমন বেশি মসলা দিয়ে রান্না করা খাবার খেলে জ্বালা পোড়া শুরু হয় আবার কারও কারও চা বা কফি খেলেই এই অসুবিধা শুরু হতে পারে একেক জনের একেক রকম হতে পারে।

যারা ধূমপান করেন তাদের এই সমস্যা বেশি দেখা দেয় যদি অনেক টেনশনে থাকেন সেখানে থেকে হতে পারে আপনার ওজন যদি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হয় তখন এই সমস্যা বেশি হতে পারে যারা গর্ভবতী তারা প্রায়ই এ সমস্যায় ভোগেন আর নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ আছে যেগুলো সমস্যা তৈরি করতে পারে যেমন অ্যাসপিরিন আইবুপ্রফেন ইত্যাদি। 

যদি ডাক্তারের পরামর্শে ওষুধ খান তাহলে কোনভাবেই ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া নিজে নিজে ওষুধ গুলো বন্ধ করবেন না আপনার ডাক্তারকে জানানো শুরু করার পরে মনে হচ্ছে জ্বালাপোড়া সমস্যা বেড়ে গেছে ডাক্তারি আপনাকে বদলে দিতে পারেন অথবা জ্বালা প্রয়োজনে অন্য ওষুধ দিতে পারেন। 

গ্যাস্ট্রিক সমস্যা আমরা বাসায় বসেই যে সব উপায়ে কমাতে পারিঃ 

বাসায় বসেই যে সব উপায়ে আপনি সমস্যা কমাতে পারেন আমাদের প্রতিদিনের অভ্যাস এর কিছু পরিবর্তন করলে কিন্তু আমি নিজে নিজেই এই সমস্যা অনেকটা কমিয়ে আনতে পারি। 

পেট ভরে খাবার খওয়া 

একবারে অনেক খাবার খেলে পাকস্থলী অনেক ফুলে ওঠে আর তখন পাকস্থলীর ভেতরে আছে উপরের দিকে উঠে আসতে পারে আর শুরু হতে পারেন বুকে জ্বালা পোড়া।

তাই এক সাথে পেট ভরে খেলে এই সমস্যা বেশি হতে পারে তাই অনেক খাবার একসাথেই খাবেন না। আপনার বেশি খাবার অব্বা থাকলে সারাদিনে ভাগ ভাগ করে কিছুক্ষণ পর পর অল্প অল্প খাবার খাওয়ার চেষ্টা করতে পারেন। 

খাবারের সময় অনিয়ম 

খাবারের সময় অনিয়ম করবেন না সময়মত খাবার না খেলে পাকস্থলী আরেকটা রোগ সম্ভাবনা বেড়ে যায় নাম গ্যাসট্রাইটিস এই রোগ পাকস্থলীর ক্ষত দেখা দেয় ইনফেকশন হতে পারে,

আর এই রোগ হলেও আপনার পেটে জ্বালা পোড়ার মতো ব্যথা হতে পারে। তাই পাকস্থলী সুস্থ রাখতে আপনাকে নিয়ম করে সময়মতো খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে।

যেই খাবার গুলো খেলে জ্বালা পোড়া করে আপনি শুধু সেই সব খাবার এড়িয়ে চলবেন সেটা হতে পারে এ মসলা দেয়া অতিরিক্ত তেল দেয়া খাবার আপনার প্রিয় চপ মুড়ি মুড়ি চানাচুর চটপটি এমনকি ডালভাত ইত্যাদি।

Enjoyed this article? Stay informed by joining our newsletter!

Comments

You must be logged in to post a comment.

Related Articles
লেখক সম্পর্কেঃ

Hi! My name is Md.Mine Uddin and I am a Article Writing from Comilla, Bangladesh. I have been working in freelancing about 3 years.